ই-গভর্ন্যান্সে বাংলাদেশ: সরকারের নানা উদ্যোগ সত্ত্বেও অগ্রগতি সামান্য

facebook Share on Facebook
e2
e

সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার খাত তথ্যপ্রযুক্তি। এর ব্যবহারের মাধ্যমে নাগরিকদের দোরগোড়ায় বিভিন্ন সরকারি সেবা পৌঁছে দিতে নানা কার্যক্রম চলছে। তবে ব্যবস্থাপনা, ব্যবহারের দক্ষতা, দ্রুতগতির ইন্টারনেট, ডিজিটাল কনটেন্টের সহজলভ্যতা ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থার অভাবে প্রত্যাশিত মাত্রায় ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না এসব সেবা। এর প্রতিফলন দেখা গেছে সম্প্রতি জাতিসংঘ প্রকাশিত ই-গভর্নমেন্ট সার্ভে ২০১৪ শীর্ষক প্রতিবেদনে। জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক সম্পর্ক বিভাগ পরিচালিত জরিপের ভিত্তিতে তৈরি ই-গভর্নমেন্ট ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্স (ইজিডিআই) অনুযায়ী, ১৯৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৮তম।

 

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ই-গভর্ন্যান্সে বাংলাদেশের উন্নয়ন ঘটেছে দুই ধাপ। এ সময়ে সূচক দাঁড়িয়েছে দশমিক ২৭৫৭, যার বৈশ্বিক গড় দশমিক ৪৭১২। অনলাইন সেবার সূচকে বাংলাদেশ পেয়েছে দশমিক ৩৪৬৫, টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো সূচকে দশমিক শূন্য ৯৪১ ও মানবসম্পদ সূচকে দশমিক ৩৮৬৬।

ই-গভর্ন্যান্স উন্নয়ন সূচকে ২০১০ সালে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৭৯ দেশের মধ্যে ১৩৪তম। ২০১২ সালে ১৬ ধাপ পিছিয়ে যায় বাংলাদেশ। ওই বছর প্রকাশিত সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান দাঁড়ায় ১৫০। এ সময়ে অনলাইন সেবায় ৬০ থেকে পিছিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান দাঁড়ায় ৮৮তে। অবকাঠামোর ক্ষেত্রেও এ সময় পিছিয়েছে বাংলাদেশ। ২০১০ সালের ১৬১তম অবস্থান থেকে পিছিয়ে ২০১২তে ১৬৪তে পৌঁছেছে এ সূচক। এমনকি মানবসম্পদ তৈরির ক্ষেত্রেও  অবনমন ঘটেছে। ২০১০ সালে ১৬৭তম অবস্থান থেকে ২০১২ সালে ১৭৩-এ পৌঁছেছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে তরুণ বয়সী বেকারদের মধ্যে ৩৫ শতাংশের দক্ষতার অভাব রয়েছে। এছাড়া চাকরিবিষয়ক তথ্যের অভাব রয়েছে ৩৩ শতাংশের এবং চাকরির অভাব রয়েছে ১৮ শতাংশের।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ই-গভর্নমেন্ট ইনডেক্সে সবার ওপর রয়েছে শ্রীলংকা। দেশটির অবস্থান ৩৭তম আর সূচকের হিসাবে দশমিক ৬৫৩৫। মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে অনলাইনভিত্তিক সেবার ক্ষেত্রে শ্রীলংকার অবস্থান ৬। এর পরই রয়েছে ৯৪তম স্থানে থাকা মালদ্বীপ। ই-গভর্নমেন্ট ইনডেক্সে ভুটানের উন্নয়ন ঘটেছে নয় ধাপ। ২০১০ সালে ১৫২তম অবস্থানে থাকা ভুটান ২০১২ সালে ১৪৩তম স্থানে উঠে এসেছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পিছিয়ে রয়েছে আফগানিস্তান।

খাতসংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে সামগ্রিকভাবে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের যে উন্নয়ন ঘটেছে, তা ঘোষিত প্রতিশ্রুতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। সরকার খাতটিকে যে ধরনের অগ্রাধিকার দিয়েছে, তাতে খাতটির উন্নয়নের প্রবৃদ্ধি আরো বেশি প্রত্যাশিত ছিল। তাদের মতে, সরকারি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে তথ্য হালনাগাদ করা হয় না। পাশাপাশি বিভিন্ন সেবা চালুর ঘোষণা দেয়া হলেও তা অনলাইনে পাওয়া যায় না।

প্রান্তিক মানুষের দোরগোড়ায় তথ্যপ্রযুক্তির সুফল পৌঁছে দিতে ২০০৮ সালে চালু করা হয় ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্র (ইউআইএসসি)। এরই মধ্যে দেশব্যাপী সাড়ে চার হাজার  ইউনিয়ন পরিষদে এ সেবা চালু করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত অধিকাংশ ইউনিয়নে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। ফলে প্রত্যাশিত সেবা দিতে পারছে না ইউআইএসসিগুলো। পাশাপাশি অনেক স্থানে নির্ধারিত হারের চেয়ে বেশি অর্থ আদায়, কেন্দ্রের বিভিন্ন সরঞ্জাম সংশ্লিষ্টদের ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহারেরও অভিযোগ রয়েছে; যার কারণে মূল উদ্দেশ্য পূরণে পিছিয়ে পড়ছে ইউআইএসসি।

একইভাবে প্রতিটি জেলা শহরের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে জেলা তথ্য বাতায়ন নামে যে ওয়েবসাইট চালু করা হয়েছে, তা নিয়েও রয়েছে বিভ্রান্তি। এখনো পূর্ণরূপে চালু না হওয়ায় এসব ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য হালনাগাদ হচ্ছে না। বিপুল অর্থ ব্যয়ে এসব প্রকল্প হাতে নেয়া হলেও যথাযথ ব্যবস্থাপনার অভাবে এখনো প্রত্যাশিত মাত্রার সেবা পাওয়া সম্ভব হয়নি এগুলো থেকে। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকার ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের সর্বোচ্চ ফোরাম হিসেবে গঠিত হয়েছে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্স’। অথচ গত পাঁচ বছরের বেশি সময়ে এ টাস্কফোর্সের বৈঠক হয়েছে মাত্র দুটি।

:: News Source-http://www.bonikbarta.com/ 

 

 

 

More Articles By This Author
Feature

বাংলাদেশের উন্নয়নে পর্যটনশিল্প গার্মেন্টস খাত থেকেও অনেক বেশি ভুমিকা রাখতে...

বাংলাদেশের উন্নয়নে পর্যটনশিল্প গার্মেন্টস খাত থেকেও অনেক বেশি ভুমিকা রাখতে পারে। - আব্দুল মূয়ীদ চৌধুরী........................................................................................................... বাংলাদেশের উন্নয়নে পর্যটন খাত...

বিকল্প শক্তির উৎস সন্ধানে

শক্তিই হচ্ছে মানব সভ্যতার প্রধান চালক। মানুষ শক্তির মাধ্যমেই মূলতঃ উৎপাদন করে থাকে। সকল কাজের মূল চালিকা শক্তি...

'Top 10 globally inspiring Bangladeshis'

A list of top 10 inspirational Bangladeshis around the world has been published at the British Parliament Commonwealth Room....

আমেরিকায় বিস্ময়কর ট্রেনের উদ্ভাবক এক বাংলাদেশী বিজ্ঞানী

  ট্রেনের কথা শুনলেই ভেসে উঠে লোহালক্কড়, রেললাইন, বগি। কিন্তু আমেরিকায় বসবাসরত একজন বাংলাদেশী  বিজ্ঞানী ড. আতাউল করিম প্রমাণ করেছেন...

মধ্যযুগের বিশ্বখ্যাত আরবীয় শিক্ষাবিদ ও গবেষক আল বিরুনি

  আবু রায়হান আল বিরুনি বা আবু রায়হান মোহাম্মদ ইবনে আহমদ আল বিরুনি (৯৭৩- ১০৪৮), ছিলেন মধ্যযুগের বিশ্বখ্যাত...

আলোর ফেরিওয়ালা: একজন পলান সরকার

রাজশাহী জেলার বাঘা উপজেলার গ্রামের লোকেরা সকালে ঘুম ভেঙে দেখতে পায়, তাদের আঙিনায় একটি হাস্যোজ্জ্বল মুখ।দাঁড়িয়ে আছেন পলান...
Prev123Next