• Bloggers
    Bloggers Search for your favorite blogger from this site.

মানুষ যদি না হয় মানুষ ---

Posted by on

বর্তমানে আমাদের সামাজিক অবক্ষয় এমন পর্যায়ে পৌছেছে যে, একজন মানুষ আরেকজনের অতি কষ্ট দেখেও মনের মধ্যে তেমন কোন কষ্ট অনুভব করে না । কেউ কোন বিপদে পড়লে তাকে সহায়তা করা তো দুরের বিষয়, সামান্য সহমর্মিতাটুকুও প্রকাশ করে না। কেউ কারোর সামান্য  ত্রুটিও মেনে নিতে চাই না। কাউকে কেউ সামান্য ছাড় দিতেও রাজী নয় । আপনার আসে পাশে তাকিয়ে দেখুন কেউ যদি কোন ত্রুটিপূর্ন আচরন করে তাহলে অপরজন আরো কয়েকগুন বেশি প্রতিক্রিয়া দেখায় এবং খারাপ আচরন দ্বারা প্রতিশোধ নেবার চেষ্টা করে। সমাজে এখনো যে ভাল মানুষ নাই তা নয়, তবে তারাও অধিক প্রতিহিংসাপরায়ন মানুষের দাপটে দিন দিন নিগৃহীত হয়ে হারিয়ে যাবার পথে।

সবাই যেন সম্পূর্ন নিজেকে নিয়েই স্বার্থপরের মত অতি ব্যস্ত। সমাজের অধিকাংশ মানুষের যখন এ অবস্থা তখন সমাজবদ্ধভাবে বসবাস করার যে সুফল তা কখনই পাওয়া যাবে না।

সমাজের বা রাষ্ট্রের চেহারা যদি হয় এমন, তবে সে সমাজে কখনই মানুষের মৌলিক অধিকার গুলো নিশ্চিত করা যায় না। সবচেয়ে ভয়ংকর বিষয় হলো - এ ধরনের অবক্ষয় রোধের জন্য সামাজিক বা রাষ্ট্রীয় কোন উদ্যোগ তো নেইই বরং অবক্ষয় আরো বেড়ে যাবার মত উপকরনই আরো দিন দিন বাড়ছে।

“কোন মানুষের মুখ বা হাত দ্বারা অপর কেউ কষ্ট পাবে না বা ক্ষতিগ্রস্থ হবে না ” - এমন আদর্শে যদি সবাইকে অনুপ্রানিত করা যেত তাহলে সমাজের চেহারা অন্যরকম হতো ! কিন্তু সে শিক্ষা নিতে হলে তো যেতে হবে সেই ইসলামের ছায়াতলে । কিন্তু সমাজের ক’জনই বা রাজী সেখানে যেতে ?

“মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য --- মানুষ যদি না হয় সে মানুষ, দানব কি কখনো হয় মানুষ --- ” গানটি কার লেখা জানি না। হাইস্কুলে পড়াকালীন সময়ে এক সহপাঠি গানটি গাইতো। আমার খুব ভাল লাগতো। তবে এ ধরনের গানতো এখন আর শোনা যায় না। আমরা মানুষ এখন আর মানুষের জন্য না, শুধুই নিজের জন্য। আমরা দেখতে মানুষের মতই আছি, শুধু বদলিয়ে যাচ্ছে আমাদের অন্তরের রুপ। একবার কি ভেবে দেখেছেন কত সহজে একজন আরেকজনকে খুন করে ভাবনাহীনভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছে ! হতে পারে আইনের শাসন নাই তাই এমন ঘটনা বাড়ছে। কিন্তু আমাদের মানসিকতার কুৎসিত পরিবর্তন কেন হচ্ছে ? সমাজের মানুষগুলোকে কে শিখাবে যে তার একটা দায়িত্ব রয়েছে অন্য মানুষের প্রতি ? আমাদের চিন্তায় পরিবর্তন আনতে হবে, ইতিবাচক ভাবনা ভাবতে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। যদিও বিশাল জনগোষ্ঠীকে যারা নেতৃত্ব দিচ্ছে তাদের নেতিবাচক মানসিকতার ছোঁয়া সবখানে ছড়িয়ে পড়ছে । তবওু ক্ষুদ্র পরিসরে নিজ নিজ অবস্থান থেকে পরিবর্তনের চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। সফলতা আসবে একদিন, ইনশাল্লাহ।

Last modified on
জাহান্নামী/জান্নাতী বিচারকের পরিচয়ঃঃ
রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন বিচারক তিন প্রকার । তারমধ্যে শুধুমাত্র এক প্রকার বিচারক জান্নাতে যাবে। বাকী দুই প্রকার জাহান্নামী হবে।
১. যে ব্যক্তি সত্যকে জেনেছে এবং সে অনুযায়ী বিচার ফায়সালা করেছে -সে বিচারক জান্নাতি হবে।
২. যে ব্যক্তি সত্যকে জেনেও অবিচার ও জুলুম করেছে, সে জাহান্নামে যাবে।
৩. যে ব্যক্তি সত্যকে জানার চেষ্টা করেনি অর্থাৎ অজ্ঞতাসহ জনগনের বিচার ফায়সালা করেছে – সেও জাহান্নামে যাবে। (আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ)

Comments

  • Jamal Selim
    Jamal Selim Thursday, 25 September 2014

    thik bolechen bro

Leave your comment

Guest Thursday, 25 May 2017

Top Rated Posts

AddressBangladesh কি এবং কেন ?
নৈতিকতাবিহীন শিক্ষাই হলো সবচেয়ে ভয়ংকর !!!
মানুষ যদি না হয় মানুষ ---
আল বিরুনি
আমাদের চিন্তা, এগিয়ে যাওয়া এবং AddressBangladesh